হিজাবি মডেল রথির গল্প

38

বিনোদন ডেস্ক: ‘হিজাবি মডেল’ হিসেবে সামাজিক মাধ্যমে বেশ পরিচিত নাম রথি আহমেদ। যিনি কিনা একাধারে একজন ইনফ্লুয়েন্সারও। এই রথি আহমেদই বাংলাদেশের প্রথম টিকটকার যিনি বিভিন্ন ব্র্যান্ডের ইনফ্লুয়েন্সার হিসাবে কাজ করেছেন। এছাড়াও একটি নামি কোম্পানির হিজাব রিচার্জ শ্যাম্পুর মডেল হিসাবেও দীর্ঘদিন কাজ করার অভিজ্ঞতা আছে তার।

বাংলাদেশ এখন ইনফ্লুয়েন্সদের জন্য স্বর্গরাজ্য হলেও তখন রথির এই পথ চলাটা মোটেও সহজ ছিল না। শত প্রতিকূলতা পার করেই সামনে উঠে এসেছেন তিনি। এখন তার সুনাম চারিদিকে।

প্রথম হিজাব পরে মডেলিং শুরু করা প্রসঙ্গে রথি বলেন, ‘একটি বিজ্ঞাপনের জন্য আমাকে চূড়ান্ত করার পর তারা জানায়, ক্যামেরার সামনে খোলা চুলে থাকতে হবে। হিজাব ছাড়া নাকি আমাকে স্ক্রিনে দেখতে ভালো লাগবে। তখন আমি ভাবি, তাহলে কি হিজাব পরে কাজ করা যাবে না! আমি সিদ্ধান্ত নিই নিজে যেমন তেমনই থাকব। এরপর থেকে যতগুলো ব্র্যান্ডের সঙ্গে কাজ করেছি, সবগুলোতে হিজাব পরেছি।’

রথি বলেন, ‘আমি ছোটবেলা থেকেই হিজাব পরি। যখন বুঝতে শিখলাম তখন থেকেই ভেবেছি- আমি যে কাজই করব হিজাব পরেই করব। সেখান থেকেই এই জায়গায়। হিজাব পরা নিয়ে আমার ফ্যামিলি থেকে কোনো চাপ ছিল না। আমি নিজের ইচ্ছাতেই হিজাব পরা শুরু করি।’

এই মডেল আরও যোগ করেন, ‘ফেসবুক, ইনস্টাগ্রাম, টিকটক প্রভৃতি প্ল্যাটফর্মে বিভিন্ন ব্র্যান্ড প্রমোশন করতে গিয়ে অনেক কিছু শিখেছি। সেগুলোর সঙ্গে নিজেকে মানিয়ে নিয়েছি। এখন কাজ করছি ট্রাভেল ভিডিও বানানো নিয়ে। কেননা এটা মেয়েদের জন্য একটা চ্যালেঞ্জ। আমার ভবিষ্যত পরিকল্পনা নিজের একটা রেস্টুরেন্ট, একটা ফ্যাশন হাউজ করার। এখন যেহেতু ফ্যাশন ক্লথিং নিয়ে পড়ছি, তাই মনে করি আমার ইচ্ছাটা পূরণ হবে।’

উত্তর দিন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না.


Notice: Undefined index: name in /var/www/wp-content/plugins/propellerads-official/includes/class-propeller-ads-anti-adblock.php on line 169