জিরো জিরো সেভেনে ড্যানিয়েল ক্রেইগ

0 60

হলিউড সিনেমা যারা দেখেন আর জেমস বন্ডকে চেনেন না এমন লোক হয়তো কমই পাওয়া যাবে। বিশ্বজুড়ে অসংখ্য মানুষের কাছে খুবই জনপ্রিয় জেমস বন্ড।

এ সিরিজের ছবিতে অনেক দুঃসাহসিক দৃশ্যে অভিনয় করে দর্শকদের পছন্দের সারিতে রয়েছেন ড্যানিয়েল ক্রেইগ। জিরো জিরো সেভেনের আড়ালে তার আসল নামটাই যেন ঢাকা পড়ে গেছে।

অসংখ্য ভক্তের কাছে এখন জেমস বন্ড নামেই পরিচিত তিনি। তবে জেমস বন্ড নামে নয়, নিজের আসল নামে ডাকলেই ভালোলাগা বেশি কাজ করে বলে জানিয়েছেন এক সাক্ষাৎকারে।

তারকা হওয়ার পর অনেক চড়াই-উতরাই পেরিয়ে আজকের অবস্থানে আসা ক্রেইগের জন্ম ১৯৬৮ সালে। ব্রিটিশ অভিনেতা তিনি। জেমস বন্ডের আগে ক্রেইগ ‘জোরো’, ‘ইন্ডিয়ানা জোন্স’, ‘লারা ক্র্যাফট’সহ অনেক জনপ্রিয় চলচ্চিত্রে অভিনয় করেছেন।

২০০৬ সালের ক্যাসিনো রয়াল চলচ্চিত্রের মাধ্যমে তিনি বন্ড চরিত্রে অভিনয় শুরু করেন। এরপর থেকেই পাল্টে যায় তার পৃথিবী, সঙ্গে নামও। ২০০৮ সালে জেমস বন্ড চলচ্চিত্রের ২২তম চলচ্চিত্র ‘কোয়ান্টম অব সলেস’-এ তিনি অভিনয় করে তাক লাগিয়ে দেন। ড্যানিয়েল জেমস বন্ড সিরিজের ৪টি ছবিতে অভিনয় করেছেন।

সর্বশেষ অভিনয় করেন ‘স্পেকটার’-এ। এ ছবিতে অভিনয়ের স্মৃতি কিন্তু খুব একটা আনন্দের নয় ড্যানিয়েলের কাছে। এ সিরিজের ‘ক্যাসিনো রয়াল’ ছবিতে স্টান্ট নিতে গিয়ে দুটি দাঁত পড়ে গিয়েছিল ক্রেইগের।

এ ছাড়া ‘কোয়ান্টাম অব সলেস’ ছবিতে একটি মারধরের দৃশ্যে খুব জোরে ঘুষি লাগে মুখে। সঙ্গে সঙ্গে হাসপাতালে নিলে প্রাণে বেঁচে যান তিনি। পরে মুখে প্লাস্টিক সার্জারি করতে হয়েছিল ক্রেইগকে। এই বন্ড সিরিজ নিয়ে এত কাণ্ড ঘটে গেছে। সেই সিরিজের ছবিতেই আর অভিনয় করছেন না এমন ঘোষণা হুট করেই দিয়ে বসেন গত বছর।

কিন্তু কেন? এমন প্রশ্নের উত্তর কাউকে দেননি তিনি। কিন্তু অভিমান বা কিছু একটা যে ছিল এটা নিশ্চিত। তিনি বলেছিলেন ‘প্রয়োজনে নিজের হাতের কবজি কেটে ফেলব, তবু বন্ড চরিত্রে আর নয়।’

কিন্তু তাকে ছাড়া বন্ড চরিত্রটি কেমন যেন অপূর্ণ থেকে যায়। প্রযোজক-পরিচালকরাও বারবার চেয়েছেন এই চরিত্রে তিনিই থাকুন। এ কারণেই সব অভিমান ভুলে আবারও ‘বন্ড’ চরিত্রে কাজ করতে রাজি হয়েছেন ক্রেইগ। কিছুদিন আগে ছবির প্রযোজক সেরকম ঘোষণাই দিয়েছেন। শুধু কী তাই! ছবিতে নাকি একটি গানও গাওয়ানো হয়েছে তাকে দিয়ে।

ক্রেইগের লাইফে খুব একটা বিতর্ক নেই। প্রেম ও সম্পর্কের বিচ্ছেদ হলিউডে তো নিত্যদিনের ব্যাপার। এটা তার জীবনে খুব একটা প্রভাব বিস্তার করেনি বলেই একবার এক সাক্ষাৎকারে জানান ক্রেইগ। এখনও নিজের মতো করে সময় কাটাচ্ছেন। নতুন নতুন মিশন নিয়ে ছুটছেন।

উত্তর দিন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না.