‘শ্রীদেবীর মৃত্যু পরিকল্পিত হত্যা’

0 64

দুবাইয়ের ফরেনসিক রিপোর্টে স্পষ্ট বলা হয়, দুর্ঘটনাবশত পানিতে ডুবে মারা গেছেন বলিউড অভিনেত্রী শ্রীদেবী। কিন্তু এই মৃত্যু দুর্ঘটনা নয়, বরং পরিকল্পিত বলে দাবি তুললেন অবসরপ্রাপ্ত পুলিশ কর্মকর্তা বেদ ভূষণ। তিনি দিল্লিতে এক বেসরকারি গোয়েন্দা সংস্থা চালাতেন। তার দাবি, শ্রীদেবীর মৃত্যু পরিকল্পনা মাফিক করা হয়েছিল।

‘ফ্রি প্রেস জার্নাল’কে দেওয়া সাক্ষাৎকারে অবসরপ্রাপ্ত পুলিশ কর্মকর্তা বেদ ভূষণ বলেন, ‘এভাবে কাউকে খুন করা খুবই সহজ। একজনকে বাথটাবের মধ্যে ডুবিয়ে রাখা, যতক্ষণ না তার শ্বাস বন্ধ হয়ে যায় এবং এ ক্ষেত্রে অপরাধী অনেক সময় সেভাবে কোনো প্রমাণও রাখে না। এরপর একে দুর্ঘটনা হিসেবেই তুলে ধরা হয়। অথচ খুন হয় পরিকল্পিত। শ্রীদেবীর ক্ষেত্রেও এমনটাই ঘটেছে।’

বেদ ভূষণের দাবি, শ্রীদেবীর মৃত্যুর পর তিনিও দুবাইয়ের ‘জুমেরিয়াহ এমিরেটস টাওয়ার’-এ গিয়েছিলেন তদন্তের স্বার্থে, যেখানে মৃত্যু হয় বলিউডের প্রথম নারী সুপারস্টারের। অথচ তাকে শ্রীদেবীর সেই ঘরে ঢুকতেই দেওয়া হয়নি। তবে শ্রীদেবী যে ঘরে ছিলেন তার পাশের ঘরটায় তিনি থাকার ব্যবস্থা করেন এবং শ্রীদেবীর মৃত্যু-পরবর্তীকালে সব ঘটনা পর্যবেক্ষণের চেষ্টা করেন। অসামঞ্জস্যপূর্ণ বেশ কিছু ঘটনা তার চোখে পড়ে। তখনই তার মনে হয় শ্রীদেবীর মৃত্যু স্বাভাবিক নয়। কিছু একটা লুকোনো হচ্ছে।

এর আগে, শ্রীদেবীর মৃত্যু স্বাভাবিক নয়, তাকে খুন করা হয়েছে—এই দাবি তুলেছিলেন পরিচালক সুনীল সিং। সুনীল সিংয়ের প্রশ্ন ছিল, শ্রীদেবীর উচ্চতা ৫ ফুট ৭ ইঞ্চি। আর বাথটাবটি ছিল ৫ ফুটের। তাহলে কীভাবে বাথটাবে ডুবে তার মৃত্যু হতে পারে?

পাশাপাশি, সুনীল সিংয়ের আইনজীবী বিকাশ সিংও একই দাবি করেন। তাদের দাবি, শ্রীদেবীর নামে ওম্যামে ২৪০ কোটির একটা ইন্স্যুরেন্স ছিল, যা কিনা তিনি একমাত্র দুবাইতে মারা গেলেই তার পরিবার পেতে পারত। আর শ্রীদেবী দুবাইতেই মারা গিয়েছেন। তাই অভিনেত্রীর মৃত্যু পরিকল্পিত মনে করছেন তারা।

এ প্রসঙ্গে সুনীল সিং প্রথমে দিল্লি হাইকোর্ট এবং পরবর্তীকালে সুপ্রিম কোর্টেও আবার তদন্তের আবেদন করেন। যদিও দিল্লি হাইকোর্ট ও শীর্ষ আদালত সেই আবেদন খারিজ করে দেয়। তবে সাবেক পুলিশ কর্মকর্তার দাবিতে নতুন করে প্রশ্ন উঠল শ্রীদেবীর মৃত্যুর কারণ নিয়ে।

সূত্র: পিঙ্ক ভিলা

উত্তর দিন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না.