‘অনেকবার চাপ এসেছিল অ্যাবোরশন করার জন্য’

0 ১৫

মডেল ও অভিনেত্রী মাকসুদা আক্তার প্রিয়তি। বিভিন্ন সময়ে তিনি তার চিন্তাধারার জন্য আলোচনায় এসেছেন। ইতোপূর্বে তিনি নানান কারণে সংবাদও হয়েছেন গণমাধ্যমে। নারী পুরুষের যৌনতা নিয়েও খোলাখুলি কথা বলেন তিনি।

৫ জুন, মঙ্গলবার গর্ভপাত বা অ্যাবোরশন বিষয়ে নিজ ফেসবুকে অ্যাকাউন্টে একটি স্ট্যাটাস দিয়েছেন প্রিয়তি।

তিনি লিখেছেন ‘সম্পর্কের টানাপড়েন থাকার কারণে অনেকবার চাপ এসেছিল অ্যাবোরশন করিয়ে ফেলার জন্য। আমার উত্তর শক্ত ‘‘না’’ ছিল। যদি নিজেরা দায়িত্বহীন হই তাহলে একটা জীবনকে হত্যা করার আমাদের কোনো অধিকার নেই। তখনই জানতাম, যুদ্ধ আমাকে একাই করে যেতে হবে সারাজীবন। মেনে নিয়েছি, প্রস্তুত হয়েছি ধীরে ধীরে।

তখন যা আমার জানার দরকার ছিল, তা হলো প্রোপার সেক্স এডুকেশন। একটা কথা আমাদের সমাজে মোটামুটি স্টাব্লিশ, তা হলো অ্যাক্সিডেন্টলি হয়ে গিয়েছে বা অ্যাক্সিডেন্টলি স্পার্ম বের হয়ে গিয়েছে, যা ছেলেরা নিজেরাই জানে না। এই কথাটি সম্পূর্ণ ভুল। অ্যাক্সিডেন্টলি কেউ প্রেগন্যান্ট হয় না, দায়িত্বহীনতায় হয়।

পুরুষেরা খুব ভালো করেই জানে কখন তার স্পার্ম নিঃসৃত হবে এবং সেটা তারই নিয়ন্ত্রণে থাকে, কখনো থেকে থেকে স্পার্ম নিঃসৃত হয় না, একসাথে হয়। সুতরাং, তা জানা সত্ত্বেও অনেক সময় নিজের দোষ এড়ানোর জন্য অনেক ছেলে চুপ থেকে যায় যে তার বীর্যের ফোঁটা নারীর দেহের ভেতর পড়েছে।

স্পার্ম বের হওয়ার পরও দৈহিক মিলনেও প্রেগন্যান্ট হওয়ার সম্ভাবনা থাকে যদি কোনো প্রোটেকশন না থাকে, কেননা অবশিষ্ট বীর্য থেকে যায় পুরুষাঙ্গের নালীর ভেতর, যা ২৪ ঘণ্টা অ্যাকটিভ থাকে। কথা বললে আসলে অনেক কথা বলা যায়। জানা প্রয়োজন। একটি ভ্রূণ হত্যা করার আগে জানুন।’

বাংলাদেশি মেয়ে মাকসুদা আক্তার প্রিয়তি আয়ারল্যান্ডের একজন তারকা। ‘মিজ আয়ারল্যান্ড ২০১৪’ খ্যাত প্রিয়তি ‘মিজ আর্থ’ প্রতিযোগিতায় প্রথম রানারআপও হয়েছিলেন।

উত্তর দিন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না.