‘জ্যাককে হত্যার ফলেই সফল হয় টাইটানিক’

0 ১৩

হিমেল রাতে সমুদ্রের কালো পানিতে ভাঙা দরজার ভেলা ঠেলতে ঠেলতে ঠাণ্ডায় জমে যাওয়া জ্যাকের শরীর তলিয়ে যায়। এমন দৃশ্য রয়েছে ইতিহাসের সবচেয়ে আলোচিত ছবি ‘টাইটানিক-এ।

জেমস ক্যামেরনের ব্লকবাস্টার ছবি ‘টাইটানিক’ ২০১৮ সালে ২১ বছর পার করেছে। দীর্ঘ সময় পার হলেও টাইটানিক নিয়ে আলোচনা, সমালোচনা বা বিতর্কের শেষ নেই।

টাইটানিক ছবির সবচেয়ে আলোচিত বিষয় নায়ক জ্যাকের মৃত্যু। আজকের প্রজন্মও কিছুতেই মেনে নিতে পারেনি জ্যাকের মৃত্যু।

পরিচালক ক্যামেরন দীর্ঘদিন নীরবতা পালনের পর এবার মুখ খুলেছেন। আন্তর্জাতিক সংবাদমাধ্যম ফক্স নিউজের এক প্রতিবেদনে জানিয়েছে, অস্ট্রেলিয়ার একটি মিডিয়াকে দেয়া এক সাক্ষাৎকারে ক্যামেরন জানিয়েছেন, জ্যাককে মরতেই হতো। তিনি নিজেই চেয়েছেলেন এমন এক ছবি করতে, যার উপসংহার হবে বিষাদমধুর।

জ্যাক চেয়েছিলেন তার জীবনশক্তি রোজের মধ্যে সঞ্চারিত হোক। এভাবেই জ্যাক ‘বেঁচে থাকুক’। রোজের স্মৃতিতে সে চিরজাগরুক হয়ে থাকুক। এ আরেক রকম বেঁচে থাকা।

তিনি আরো জানান, জ্যককে যদি বাঁচিয়ে রাখা হতো তাহলে এই ছবিটাই ব্যর্থ হয়ে যেত। এ ছবির উপসংহার অর্থহীন হয়ে যেত। কারণ এই ছবিই বিয়োগান্তক। মৃত্যু আর বিচ্ছেদই এর উপজীব্য। শিল্পকে অঙ্ক কষে বোঝা সম্ভব নয়।

উত্তর দিন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না.