নাইটক্লাবের দারোয়ানকে গালিগালাজ করেছিলেন স্টোকস

0 20

ব্রিস্টলের এক নাইট ক্লাবে ঝামেলায় জড়িয়ে গত বছর গ্রেফতার হন বেন স্টোকস। যার জন্য নির্বাসনের মুখে পড়ে শেষ অ্যাসেজেও ছিলেন না ইংল্যান্ডের এই তারকা অলরাউন্ডার। এবার সেই বিতর্ক নতুন মাত্রা পেল ব্রিস্টলের নাইট ক্লাবের দারোয়ানের কথায়।

আদালতে সাক্ষ্য দিতে গিয়ে নাইট ক্লাবটির দারোয়ান স্পষ্টই জানান, জোর করে নাইট ক্লাবে ঢুকতে চাইছিলেন স্টোকস এবং হ্যালস। বাজে ভাষাও ব্যবহার করেছিলেন দারোয়ান এবং ভেতরে উপস্থিত নাইটক্লাব মেম্বারদের সাথে।

এই অভিযোগে গত বছরই গ্রেফতার হয়েছিলেন ইংল্যান্ড অল-রাউন্ডার বেন স্টোকস। ওই বছরে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিরুদ্ধে তৃতীয় ওয়ানডে জয়ের পর ব্রিস্টলে ঘটনার জন্য গ্রেফতার হন স্টোকস। এক রাত জেলে কাটানোর পর তখন যদিও ছাড়া পেয়ে যান ইংরেজ অল-রাউন্ডার। একই ঘটনায় গ্রেফতার হয়েছিলেন ইংল্যান্ড ওপেনিং ব্যাটসম্যান অ্যালেক্স হ্যালস। তিনিও পরে ছাড়া পেয়ে যান। এই ঘটনায় ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিরুদ্ধে ওয়ানডে সিরিজের শেষ দু’টি ম্যাচে নির্বাসিত স্টোকস ও হ্যালস।

সামারসেট পুলিশের পক্ষ থেকে জানানো হয়, নাইট ক্লাবটির দারোয়ান অ্যান্ড্রু কানিংহ্যাম ক্রিকেটের ভক্ত নন তাই তিনি স্টোকস কিংবা হ্যালসকে চিনতেন না। নাইট ক্লাবে ঢোকার সময় দারোয়ান বাধা দেন। প্রথমে দায়োয়ানকে ঘুষ দিয়ে নাইট ক্লাবে ঢোকার চেষ্টা করেন, ব্যর্থ হয়ে দারোয়ানকে গালিগালাজ করেন তাদের চিনতে না পারার জন্য।

এর আগেও ‘ব্যাড বয়’-এর খাতায় নাম লিখিয়েছিলেন ইংল্যান্ড টেস্ট দলের ভাইস-ক্যাপ্টেন স্টোকস। ২০১২ সালে পুলিশের সঙ্গে ঝামেলায় জড়িয়ে আটক হয়েছিলেন। পরের বছর লেট-নাইটে মদ্যপানের জন্য ইংল্যান্ড লায়ন্স ট্যুর থেকে দেশে ফিরেছিলেন স্টোকস। ২০১৪ টি-২০ বিশ্বকাপে ঘুষি মেরে লকার ভেঙে দল থেকে বাদ পড়েছিলেন ইংল্যান্ড অল-রাউন্ডার।

উত্তর দিন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না.